হ্যালো বন্ধু‌। কেমন আছেন? আশা করি আপনি আল্লাহর রহমতে ভাল আছেন। আজকে আমরা জানবো এপ্রিল মাসের দিবস সমূহ কি কি সে সম্পর্কে। আপনিও নিশ্চয়ই এপ্রিল মাসের দিবস সমূহ কি কি সেগুলো জানতে আগ্রহী।

আপনি যদি এপ্রিল মাসের দিবস সমূহ কি কি সে সম্পর্কে না জানেন তাহলে পোস্টটি সম্পূর্ণ পড়ুন। কেননা আজকের এই পোষ্টটাতে আপনার জন্য এপ্রিল মাসের দিবস সমূহ কি কি সে সম্পর্কে বিস্তারিত বর্ণনা। তাহলে শুরু করা যাক।

এপ্রিল মাসে মোট কয়টি দিবস রয়েছে।

এপ্রিল মাসের দিবস সমূহ কি কি সেগুলো বর্ণনা করার আগে আমরা যেনে নিই যে, এপ্রিল মাসে মোট কয়টি দেশ রয়েছে। এপ্রিল মাসে মোট 30 দিনের মধ্যে ২৩ টি দিবস রয়েছে পুরো বিশ্বের মধ্যে। যেগুলো নিচে বিস্তারিত বর্ণনা করা হয়েছে।

এপ্রিল মাসের নামকরণ। ইংরেজি মাসের নামের ইতিহাস।

এপ্রিল মাসের দিবস সমূহ কি কি সেগুলো বর্ণনা করার আগে আমরা যেনে নিই যে, এপ্রিল মাসের নামকরণ বা এপ্রিল মাস কে এপ্রিল মাস কেন বলে।

ইতিহাসের পাতায় এপ্রিল নামকরণ নিয়ে তিনটি মত রয়েছে।

  1. এপ্রিল এটি একটি ল্যাটিন শব্দ “এপ্রিল” অর্থ হচ্ছে বাংলায় “দ্বিতীয়“। যেহেতু রোমান ক্যালেন্ডার এপ্রিল দ্বিতীয় মাস ছিল সেই কারণে এপ্রিলকে এপ্রিল বলে নামকরণ করা হয়েছে।
  2. এপ্রিল হচ্ছে একটি “ল্যাটিন” শব্দ। এপ্রিল এর প্রথমত নাম ছিল “এপ্রোয়ার“। “এপ্রোয়ার” অর্থ হচ্ছে উন্মোচন করা। যেহেতু এপ্রিলের মধ্যে ফুলে ফুলে নতুন কুঁড়ির উন্মোচন হয় তাই এর নাম এপ্রোয়ার রাখা হয়েছে। যেটাকে পরবর্তীতে এপ্রিল নামে পরিবর্তন করা হয়েছে।
  3. আবার কেউ কেউ মনে করেন যে, এপ্রিল নামটি এসেছে রোমানের দেবী “আফ্রোদিতির” থেকে।

এপ্রিল মাসের দিবস সমূহ কি কি।

১/ এপ্রিলের প্রথম দিবস হচ্ছে:-১ লা এপ্রিল (এপ্রিল ফুল/April fool.)

“এপ্রিল ফুল” এটি হচ্ছে একটি মূলত ইংরেজি শব্দ। যার ইংরেজি বানান হচ্ছে “April fool” যার বাংলা অর্থ এপ্রিলের বোকা। এ দিবসকে কেন এপ্রিল ফুল বলা হয় এটার একটা হৃদয় বিদারক ঘটনা রয়েছে। যা নিম্নে তুলে ধরা হলো।

ঘটনা:- হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর আগমনের পর থেকেই পৃথিবী এক উজ্জ্বল নক্ষত্র খুঁজে পায়। যার আলোতেই পুরো বিশ্ব আলোকিত হয়। যে নবীর একত্ববাদের দাওয়াতে মানুষ আগ্রহী হয়ে এমন এক পর্যায়ে পৌঁছে যায়। অর্থাৎ মুসলমানের সংখ্যা বাড়তে থাকে।

প্রথম দিক থেকেই যখন মুসলমানের ঈমানী শক্তি বেশি ছিলো। মুসলমানরা একজনের সম্পদ আরেকজন লুটে খেত না। তখন মুসলমানরা বিশ্বের এক এক রাজ্য দখল করতে শুরু করলো। এমনকি পুরো বিশ্বের প্রায় সকল দেশে মুসলমানদের হাতে চলে আসে।

যার আলোয় আলোকিত হয়েছিল পুরো বিশ্ব। অর্থাৎ হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু ওয়া সাল্লাম এর শাহাদাতের পর মুসলমানের ঈমানী শক্তি যখন দুর্বল হতে শুরু করল। প্রায় এক হাজার বছর পরে যখন মুসলমানরা কুরআন-হাদীসের কথা প্রায় ভুলে যাই।

অর্থাৎ আজ থেকে প্রায় পাঁচশত বছর আগে মুসলমানদের কাছে এক কালো দিন চলে আসে। যেদিন মুসলিমদের কাছ থেকে খ্রিষ্টান, কাফিররা মুসলমানদের থেকে মুসলমানদের ক্ষমতা লুটে নেয়। সেই দিনটি ছিল ১লা এপ্রিল ১৪৯২ খ্রিস্টাব্দ

তখনকার কাফিররা মুসলমানদেরকে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করার জন্য। তারা এই দিনকে অর্থাৎ ১লা এপ্রিল কে এপ্রিল ফুল/April Pool করে নামকরণ করে। যার অর্থ হচ্ছে এপ্রিলের বোকা। আল্লাহই ভালো জানেন।

২/ এপ্রিলের দ্বিতীয় দিবস হচ্ছে:- ২রা এপ্রিল ।(বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস)

এই দিবসটি হচ্ছে এমন একটি দিবস যেটা জাতিসংঘের মধ্যে স্বীকৃতিপ্রাপ্ত সাতটি দিবসের একটি।এটি পুরো পৃথিবীর মধ্যে ২রা এপ্রিল পালিত হয়।

এটি একটি সচেতনামূলক দিবস। (ASD) তে যারা আক্রান্ত হয়েছে বিশেষ করে তাদের কে সচেতন করার লক্ষ্যে এই দিবস পালিত হয়।

৩/ এপ্রিলের তৃতীয় দিবস হচ্ছে:-জাতীয় চলচ্চিত্র দিবস। 

চলচ্চিত্র ইন্ডাস্ট্রিজে বাংলাদেশের ভূমিকা নেই বললেই চলে। ভূমিকা না থাকা সত্বেও চলচ্চিত্র দিবস কিন্তু ঠিকই চলতেছে।

এই দিবস ২০১২ সালের ৩ই এপ্রিল থেকে শুরু হয়। এই দিবসের মধ্যে করোনাভাইরাস এর কারণে কিছুটা ঘাটতি হলেও। প্রায় নয় বছর ধরে ঠিকই চলেছে ‌‌।

৪/ এপ্রিলের চতুর্থ দিবস হচ্ছে:- ৪ঠা এপ্রিল-  আন্তর্জাতিক খনি নিরাপত্তা দিবস।

প্রতিবছর প্রায় হাজার হাজার শ্রমিকের মৃত্যু হচ্ছে খনি থেকে সম্পদ তুলতে যাওয়ার কারণে। এত বছর হয়ে যাওয়ার পরেও এখনো পর্যন্ত শ্রমিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত হয়নি। বিশেষ করে এশিয়াতে যে দেশগুলো আছে সেগুলোতে এই মৃত্যুর ঝুঁকি বেশি। প্রতিবছর ৪ ই এপ্রিল এই দিবস পালিত হয়।

৫/ এপ্রিলের পঞ্চম দিবস হচ্ছে:- ৫ ই এপ্রিল ( প্রতিবন্ধী দিবস )

আলহামদুলিল্লাহ আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে হাত,পা, চোখ ইত্যাদি আরো অনেক কিছু দিয়েছেন। যেগুলোর শুকরিয়া করে শেষ করা যাবে না।

এমন অনেক মানুষ আছে যাদের হাত,পা ইত্যাদি নেই। শুধুমাত্র তাদেরকে উদ্দেশ্য করে প্রতিবন্ধী দিবস উদযাপন করা হয়। যেন তাদের একটা সম্মান পৃথিবীর বুকে থাকে সব সময়।

৬/ এপ্রিলের ষষ্ঠ দিবস হচ্ছে :- ৭ ই এপ্রিল ( বিশ্ব স্বাস্থ্য দিবস )

২০২২ সালের 7 ই এপ্রিল অনুষ্ঠিত হবে বিশ্বব্যাপী “বিশ্ব স্বাস্থ্য” দিবস। এর একটি অন্যতম কারণ হচ্ছে জাতিসংঘের একটি প্রতিষ্ঠান অর্থাৎ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা শুরু হয় ৭ ই এপ্রিল ১৯৪৮ সালে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার শুরু হওয়ার দুই মাস পর পরই। এটির প্রথম সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল জেনেভায়।

৭/ এপ্রিলের সপ্তম দিবস হচ্ছে :- ২২ ই এপ্রিল (বিশ্ব ধরিত্রী দিবস।)

এই দিবসটির একমাত্র উদ্দেশ্য হচ্ছে ধরিত্রী কে টিকিয়ে রাখা। অর্থাৎ পরিবেশ ও প্রকৃতি কি সুন্দর রাখার মাধ্যমে দরিদ্র টিকিয়ে রাখাই হচ্ছে এই দিবসটির উদ্দেশ্য। এ দিবসটি পুরো পৃথিবীতে প্রতিবছর ২২ ই এপ্রিল অনুষ্ঠিত হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *